‘খালেদার অসুস্থতা নিয়ে আওয়ামী নেতারা মশকরা করছেন’

বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে আওয়ামী নেতারা উপহাস, তাচ্ছিল্য ও মশকরা শুরু করেছেন বলে দাবি করে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, যারা গণতন্ত্র বিনাশী মানবাধিকার পরিপন্থি, নাগরিক স্বাধীনতা হরণকারী, অগণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল তাদের কাছে রাজনৈতিক মতের বিরুদ্ধের মানুষের মর্যাদা ও জীবনের কোনো দাম নেই।’

বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা যে মিথ্যাচার করছেন তাতে জাতীয়তাবাদী চিকিৎসকরা চিকিৎসা করলে যে সার্টিফিকেট দেবেন সেখানেও সন্দেহ থাকবেই- ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আমি বলতে চাই তাহলে কি স্বাধীনতা চিকিৎসা পরিষদের সার্টিফিকেটধারীদের চিকিৎসার বাইরে দেশের মানুষ যেতে পারবে না? দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা দীর্ঘ ২০/২৫ বছর ধরে তার চিকিৎসা করছেন। যারা দেশনেত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক তারা দেশের স্বনামধন্য পেশাদারী চিকিৎসক। মানবকল্যাণই তাদের ব্রত।সোমবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রিজভী।

রিজভী আহমেদ বলেন, ‘ডাক্তারী এমন একটি পেশা যেখানে মিথ্যা বলার কোনো অবকাশ নেই। দেশনেত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা সত্য না বললে একই বিষয়ে অন্য খ্যাতিমান চিকিৎসকরা তাদের তীব্র সমালোচনা করতেন। যথার্থ চিকিৎসা নিয়ে কারা কর্তৃপক্ষের টালবাহানায় বেগম জিয়াকে বিনা চিকিৎসায় কারাগারে বিপন্ন জীবন কাটাতে হচ্ছে। দেশনেত্রীর শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে এ বিষয়ে সরকার নিশ্চুপ-নির্বাক থেকে দলের সাধারণ সম্পাদককে দিয়ে ঠাট্টা তামাশা করাচ্ছে। এটা নিষ্ঠুর উপহাস। ’

তিনি বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আদালতের বদৌলতে নয়, শেখ হাসিনার প্রতিহিংসার বদৌলতে কারাগারে বন্দী। এটাই সর্বজনস্বীকৃত। আদালতের মাধ্যমে একটা আনুষ্ঠানিকতা করা হয়েছে মাত্র।

আবারও ইউনাইটেড হাসপাতালে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবিও জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, য্গুম মহাসচিব খায়রুল কবীর খোকন, সহ দপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।