বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে সরকারের অমানবিক উদাসীনতা’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে সরকারের উদাসীনতা বলে অভিযোগ করে বিবৃতি দিয়েছে শত নাগরিক জাতীয় কমিটি নামে একটি সংগঠন। রোববার গণমাধ্যেমে পাঠানো ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, কারাগারে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের অবনতির খবরে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন বোধ করছি।একইসঙ্গে কারা কতৃপক্ষের সুপারিশের পরেও তাঁর চিকিৎসার ব্যাপারে সরকারের উদাসীনতা দেখে আমরা মর্মাহত। আমরা সরকারের এমন অমানবিক আচরণের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি এবং প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বেগম খালেদা জিয়া শুধু বিএনপি’র চেয়ারপারসনই নন, তিনি এ দেশের তিনবারের নির্বাচিত সাবেক প্রধানমন্ত্রী, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। বর্তমানে তিনি কারাগারে নানান জটিল রোগে আক্রান্ত।আমরা মনে করি, একটি প্রশ্নবিদ্ধ মামলায় এই প্রবীণ রাজনীতিবিদকে কারারুদ্ধ করার নামে বাস-অনুপযুক্ত পরিত্যক্ত ভবনে আটকে রেখে তার চিকিৎসার কোন উদ্যোগ না নিয়ে তাঁকে তিল তিল করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার। আমরা প্রত্যাশা করি, সরকার দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে অবিলম্বে উন্নত চিকিৎসার জন্য বেগম খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের পরামর্শ মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।বিবৃতি দাতারা হলেন অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ (আহ্বায়ক), সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোহাম্মদ আবদুর রউফ, প্রফেসর ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ড. মাহবুব উল্লাহ, মোহাম্মদ আসাফউদ্দৌলাহ, শওকত মাহমুদ, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, মাহফুজ উল্লাহ, প্রফেসর আফম ইউসুফ হায়দার, রুহুল আমিন গাজী, আবদুল হাই শিকদার (সদস্য সচিব), ড. খন্দকার মুশতাহিদুর রহমান, ড. সদরুল আমিন, ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম, ড. মোসলেহ উদ্দীন তারেক, গাজী মাযহারুল আনোয়ার, আলমগীর মহিউদ্দিন, এম আব্দুল্লাহ, এম এ আজিজ, সৈয়দ আবদাল আহমদ, কাদের গণি চৌধুরী, ড. রাশিদুল হাসান, ইঞ্জিনিয়ার আনহ আখতার হোসেন, প্রফেসর ড. সুকোমল বডুয়া, ড. আমিনুর রহমান মজুমদার, ড. জেড এম তাহমিদা বেগম, ড. আখতার হোসেন খান, ড. মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন (মালয়েশিয়া), ড. কেএমএ মালিক (যুক্তরাজ্য), ড. মোবাশে¡র মোনেম, ড. চৌধুরী মাহমুদ হাসান, ড. এবি এম সিদ্দিকুর রহমান নিজামী, প্রফেসর ড. আজহার আলী, মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান খান, ড. খলিলুর রহমান, ড. সাহিদা রফিক, ড. মো: হায়দার আলী, প্রফেসর একেএম আজহারুল ইসলাম, প্রফেসর ড. রফিকুল ইসলাম, প্রফেসর কেএএম শাহাদাত হোসেন মন্ডল, প্রফেসর ড. হাসান মোহাম্মদ, প্রকৌশলী কাজী এম. সুফিয়ান, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ গোলাম রব্বানী, প্রফেসর ড. মোশাররফ হোসেন মিঞা, প্রফেসর ড. মোখলেছুর রহমান, ড. বোরহান উদ্দিন খান, ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, ড. দিল রওশন জিন্নাত আরা নাজনীন, ড. লায়লা নুর ইসলাম, ড. ইয়ারুল কবির, ড. মামুন আহমেদ, ড. আবদুল লতিফ মাসুম, ড. ওবায়দুল ইসলাম, ড. সামসুল আলম, ড. জাহিদুল ইসলাম, ড. কামাল আহমদ চৌধুরী, কবি হাসান হাফিজ, কবি আবু সালেহ, রেদোয়ান হোসেন, বাছির জামাল, ড. লুৎফর হমান, ড. মোরশেদ হাসান খান, কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, প্রফেসর মো: শহিদুর রহমান, প্রফেসর এনামুল হক, প্রকৌশলী হারুন-অর রশিদ, প্রকৌশলী মমতাজ আহমেদ, প্রকৌশলী আল আমিন, প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম, কৃষিবিদ একরামুল হক, অধ্যাপক গোলাম হাফিজ কেনেডী, রাশেদুল হাসান হারুন, চৌধুরী আবদল্লাহ আল ফারুক, অধ্যাপক শাহনাজ সরকার রানু, মোহাম্মদ মাফরুহি সাত্তার, প্রফেসর কে এম গোলাম মহিউদ্দিন, প্রফেসর আ ক ম আবদুল কাদের, ডা. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, অধ্যাপক ডা. সাইফুল ইসলাম, সামশুল হক হায়দরি, জাহিদুল করিম কচি, ইসকান্দার আলী চৌধুরী, ডা. খুরশীদ জামিল চৌধুরী, ডা. আশরাফুল কবীর ভূইয়া, ডা. মো. জসিম উদ্দিন, ডা. তমিজ উদ্দিন আহমেদ, ইঞ্জিনিয়ার আবু সুফিয়ান, মনির খান, রিজিয়া পারভীন, রফিকুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার রিয়াজুল ইসলাম, এ্যাডভোকেট আবেদ রাজা, আতিকুর রহমান সালু (যুক্তরাষ্ট্র), জয়নাল আবেদিন (যুক্তরাষ্ট্র), মঞ্জুর আহমেদ (যুক্তরাষ্ট্র), আবদুল্লাহিল বাকী (ফ্রান্স), তমিজ উদ্দিন (ইতালি) প্রমুখ।