বিশেষ পরিস্থিতিতে হরতাল অবরোধের ডাক আসছে বিএনপির

আগামী ০১ সেপ্টেম্বর বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বা নয়াপল্টনস্থ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশের অনুমতি চাইবে বিএনপি। তবে অনুমতি না মিললে পরবর্তীতে সকল কর্মসূচি অনুমতি ছাড়াই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। তাছাড়া ০১ সেপ্টেম্বর পর থেকে কর্মসূচি ধারাবাহিক রাখতে বিশেষ পরিস্থিতিতে হরতাল ও অবরোধের ডাক দেওয়া হবে বলে জানা যায়।

সোমবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় এসব বিষয়ে আলোচনা হয় বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলের প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন, পোস্টার এবং ক্রোড়পত্র প্রকাশ, সভা, সমাবেশ ও র‌্যালি করা হবে বলেও জানা গেছে।

প্রায় সোয়া ১ ঘণ্টাব্যাপী এ সভায় বেগম জিয়ার মুক্তির আন্দোলন কর্মসূচি কী ধরনের হবে- সেই বিষয়ে নেতারা বিভিন্ন ধরণের মতামত দিয়েছেন বলে সূত্রে জানা গেছে। কিন্তু নির্দিষ্ট করে কোনো কর্মসূচির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। তবে অনেকেই হরতাল ও অবরোধ কর্মসূচি বিপক্ষে মতামত দিয়েছে। কিন্তু বিশেষ পরিস্থিতিতে হরতাল ও অবরোধের ডাক দেওয়া হবে বলে সভায় আলোচনা হয়।

সূত্র জানায়, মতবিনিময় সভায় দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা, সমাবেশ ও র‌্যালি করার পরামর্শ দিয়েছেন নেতারা। এছাড়া প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ধারাবাহিক কর্মসূচি যাতে হয় এবং এই ধারা যাতে অব্যাহত থাকে, সেই বিষয়েও মতামত দিয়েছেন নেতারা। তবে এসব বিষয়ে বিএনপির নীতি-নির্ধারকরা সিদ্ধান্ত নিবেন।

সূত্রটি আরো জানায়, আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমতি চাইবে বিএনপি। এর মধ্যে যেদিনই অনুমতি দেয়া হবে, সে দিনই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হবে বলে সভায় আলোচনা হয়।

সভায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। উৎস- আমাদের সময়